দৌলতপুরে তামাক চাষীদের পাশে ব্রিটিশ আমেরিকান টোব্যাকো লিঃ

নিজস্ব প্রতিবেদক:
  • আপডেট টাইম : শুক্রবার, ১ মে, ২০২০
  • ১৭৩ বার নিউজটি পড়া হয়েছে

করোনা’র ক্রান্তিকালে কুষ্টিয়ার দৌলতপুর উপজেলার তিন সহস্রধীক কৃষক যাতে ক্ষতিগ্রস্ত না হয় সেব্যাপারে উদ্যোগ নিয়েছে ব্রিটিশ আমেরিকান টোব্যাকো লিঃ। প্রতিষ্ঠানটির আল্লারদর্গা ক্রয় কেন্দ্র সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে সীমিত পরিসরে খোলা রাখা হয়েছে যাতে দৌলতপুর উপজেলার প্রান্তিক তামাক চাষীরা তামাক বিক্রি করতে পারে। এ ব্যাপারে একজন সহকারী ব্যাবস্থাপক(তামাক ক্রয়) গণমাধ্যম কে জানান, করোনা’র প্রাদুর্ভাব প্রতিরোধে সরকার ঘোষিত সাধারন ছুটির মধ্যে দৌলতপুরের তথা বাংলাদেশের অর্থনীতিতে যাতে কোন বিরূপ প্রভাব না পড়ে সেজন্য সংশ্লিষ্ট উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ এবং বিশেষজ্ঞমহলের সাথে আলোচনা করে ব্রিটিশ আমেরিকান টোব্যাকো লিঃ কৃষকের স্বার্থ রক্ষায় এ উদ্যোগ নিয়েছেন।

তিনি বলেন, উপকারভোগী কৃষকেরা ভীড় এড়িয়ে তাদের তামাক বিক্রি করতে পারছেন। এবং তামাকের মূল্য তিন কর্মদিবসে ব্যাংক আ্যাকাউন্টে পৌছে যায়। ইতোমধ্যেই কার্ডধারী সকল চাষীর কাছ থেকে প্রথম পর্যায়ে তামাক ক্রয় করা হয়েছে। কৃষক যাতে ন্যায্যমূল্য পায় সেদিকে কঠোর নজর রয়েছে বিএটিসি’র । এ প্রসঙ্গে আজমত আলী নামে এক কৃষক জানান, এক মাস আগে ক্ষেত থেকে তামাক বাড়িতে এনে পুড়িয়েছি। তামাক বিক্রি করতে না পারলে তো ঘরে তামাক নষ্ট হবে।কিস্তির টাকা শোধ করব কিভাবে? আল্লারদর্গা ক্রয় কেন্দ্রের প্রবেশদ্বারে থার্মাল স্ক্যানার দিয়ে কর্মরত শ্রমিক,কৃষক সকলের দেহের তাপমাত্রা মাপা হচ্ছে। বসানো হয়েছে হাত ধোয়ার বেসিন। রয়েছে হ্যান্ড স্যানিটাইজার,সাবান। বিনামূল্যে দেয়া হয়েছে মাস্ক।

শ্রমিকদের মার্চ মাসের বেতন পরিশোধ করা হয়েছে। করোনা’র ব্যাপারে আগত কৃষকদের মাঝে সচেনতামূলক কার্যক্রম গ্রহণ করা হয়েছে। উল্লেখ্য যে, দৌলতপুর তামাক শিল্প থেকে বাংলাদেশ সরকার প্রতিবছর ৩০০-৪০০ কোটি টাকা রাজস্ব আয় হয়ে থাকে। ব্রিটিশ আমেরিকান টোব্যাকো লিঃ ছাড়াও নাসির বিশ্বাস বিড়ি,আকিজ বিড়িসহ ¯থানীয় কয়েকটি প্রতিষ্ঠান কর্মসংস্থান সৃষ্টি সহ আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে অবদান রাখছে। সীমিত পরিসরে ক্রয় কেন্দ্রখোলা রাখায় মিশ্রপ্রতিক্রিয়া বিরাজ করলেও তামাক চাষীদের মাঝে স্বস্তি পরিলক্ষিত হয়েছে।

নিউজটি শেয়ার করুন..

এ জাতীয় আরো খবর ....
x