দৌলতপুরে এলজিইডি’র রাস্তা নির্মাণে চরম অনিয়ম ও দূর্নীতির অভিযোগ

খন্দকার জালাল উদ্দীন
  • আপডেট টাইম : সোমবার, ১৫ জুন, ২০২০
  • ১৪৪ বার নিউজটি পড়া হয়েছে

 

দৌলতপুর প্রতিনিধি : কুষ্টিয়া দৌলতপুর উপজেলার বেশ কিছু রাস্তার কাজ চলছে স্থানীয় সরকার প্রকৌশলী অধিদপ্তরের অর্থায়নে, একটি রাস্তা হোসেনাবাদ স’মিল পাড়া থেকে মথুরাপুর গোহাট পর্যন্ত। রাস্তাটি নির্মাণে চরম অনিয়ম বলে এলাকাবাসীর দাবী।

নিম্নমানের ইট, খোয়া, পাথর এবং বিটুমিন দিয়ে নির্মাণ করা হচ্ছে রাস্তা। এ বিষয়ে এলাকাবাসী এলজিইডির কুষ্টিয়া নির্বাহী প্রকৌশলীর কাছে ফোনের মাধ্যমে অভিযোগ করলে থানা ইঞ্জিনিয়ার স্থানীয় কেডার বাহিনী নিয়ে অভিযোগকারী এলাকাবাসী মেরু মোল্লার ছেলে ইয়াদ আলী কে চাঁদা বাঁজীর মামলা হবে বলে হুমকি প্রদান করে।

বিষয়টি বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোটের কেন্দ্রীয় নেতা মোতাছিন বিল্লাহকে অবহিত করলে, তিনি রাস্তার কাজ পরিদর্শন করেন এবং সে সময় এলাকাবাসী নির্ভয়ে কাজের অনিয়ম দূর্নীতির চিত্র তুলে ধরেন। এই কাজটি এক প্রভাবশালী ঠিকাদার স্থানীয় প্রভাবশালী মুনতাজকে হাত করে নিম্নমানের ইট, খোয়া, পাথর এবং বিটুমিন দিয়ে নির্মাণ করা হচ্ছে রাস্তা।
বিশিষ্ট সমাজ সেবক বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোটের কেন্দ্রীয় কমিটির সাংস্কৃতিক বিষয়ক সম্পাদক মোতাছিন বিল্লাহ সোমবার জানান, আমি দীর্ঘ দিন ধরে শুনে আসছি, বিভিন্ন রাস্তার কাজের অনিয়ম হচ্ছে। কিন্তু দুঃখজনক হলেও সত্য কেউ যদি বাঁধা দিতে আসে তাদেরকে চাঁদাবাজির মামলা দেওয়া হবে হলে হুমকি দেওয়া হয়। আজ আমি সকালে হাঁটতে বের হয়ে দেখি নতুন রাস্তার কার্পেট ছোট ছোট বাচ্চারা তুলেফেলছে। আমি নিজেও দেখলাম হাত না লাগাতেই কার্পেট উঠে যাচ্ছে, নিম্নমানের ইট, খোয়া, পাথর এবং বিটুমিন দিয়ে নির্মাণ করা হচ্ছে রাস্তাটি ।

বৃষ্টি পড়া কালীন সময়ে কাজ করলে বাঁধা দিলেও হুমকি দেয় ইঞ্জিনিয়ার। এ বিষয়ে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান টিটু এন্টারপ্রাইজ হলেও কাজ করছেন নাসির নামের এক ঠিকাদার। নাসির উদ্দিনের সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করলে তিনি জানান, টিটু আমার চাচা আমি এবং টিটু এক সাথে কাজ করি। আমাদের যে কাজটির মান নিয়ে কথা উঠেছে হোসেনাবাদ থেকে মথুরাপুর প্রর্যন্ত ১৭শত মিটার প্রায়, ৬৯ লক্ষ টাকার কাজ। কাজটি থানা ইঞ্জিনিয়ার নিজে দাঁড়িয়ে থেকে করিয়ে নিচ্ছে।

থানা ইঞ্জিনিয়ার ইফতেখার উদ্দিন জোয়াদ্দার জানান, কাজ ঠিক মত হচ্ছে আমার অফিসের লোক সব সময় কাজের সাইডে আছে, তবে কোন ক্রটি হলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে , বৃষ্টির মাঝে কাজ করা যায় কি এমন প্রশ্নের উত্তরে তিনি জানান বৃষ্টি হলে কখনো কাজ করা সম্ভব নয়, তাহলে কাজ কিভাবে হচ্ছে এই প্রশ্নের সদুত্তর দিতে পারেননি। তবে এলাকাবাসীকে হুমকি দেওয়ার বিষয়ে তিনি জানান, আমি কোন ব্যক্তিকে হুমকি দেয় নাই। বিষয়টি তদন্ত পূর্বক ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য যথাযথ কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আর্কষণ করছে এলাকাবাসী।

নিউজটি শেয়ার করুন..

এ জাতীয় আরো খবর ....
x