দৌলতপুর সদর ইউনিয়ন পরিষদের সংরক্ষিত মহিলা আসনের সদস্য মেমজান ও ছাপাতনের বিরুদ্ধে ইউ পি সদস্যদের প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত

Khandaker Jalal Uddin. Email: uddinjalal030@gmail.com
  • আপডেট টাইম : সোমবার, ৩ আগস্ট, ২০২০
  • ৬১ বার নিউজটি পড়া হয়েছে
দৌলতপুর প্রতিনিধি : কুষ্টিয়ার দৌলতপুর উপজেলার দৌলতপুর সদর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মহিউল ইসলাম মহির নামে ভুল তথ্য দিয়ে বিভিন্ন পত্র-পত্রিকায় ”দুই মেম্বারের সম্মানী ভাতা চেয়ারম্যানের পকেটে” শিরোনামে সংবাদ প্রকাশ করায় ইউনিয়ন পরিষদের সংরক্ষিত মহিলা আসনের দুই সদস্য মেমজান ও ছাপাতন। এই ঘটনার প্রতিবাদে দৌলতপুর ইউনিয়নের ৯ জন ইউ পি সদস্য ও এক জন সংরক্ষীত মহিলা সদস্য প্রতিবাদ সভা করেন। সোমবার সকাল ১১ টার দিকে ইউনিয়ন পরিষদ অফিসে প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় উপস্থিত ছিলেন, ইউ পি সদস্য আব্দুল মান্নান,সাইদুর রহমান,মুক্তার আলী, এনামুল হক, মুক্তার হোসেন, আব্দুল আজিজ,রশিদুল ইসলাম, হাবিবুর রহমান, নাসিরুল ইসলাম, মফিজুর রহমান মুক্তার ও সংরক্ষীত মহিলা সদস্য ফজিলাতুন নেছা। প্রতিবাদ সভায় জানান চেয়ারম্যানের রাজনৈতিক ভাবমূর্তি ও সুনাম নষ্ট করার জন্য দুইজন মহিলা মেম্বার উদ্দেশ্য প্রণোদিত ভাবে সাংবাদিকদের ভিত্তিহীন ও মিথ্যা তথ্য দিয়ে সংবাদ প্রকাশ করিয়েছেন। চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে যে লিখিত অভিযোগ করেছে তা সম্পূর্ণ মিথ্যা ও ভিত্তিহীন। কারন আমরা সকল সদস্য সম্মানী ভাতা পেয়েছি, তারা দুই জন পাবেনা কেন? তারা আরো জানান এটা চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে একটি ষড়যন্ত্র। পর পর তিন মাস মিটিং কল করলেও তারা মিটিংয়ে উপস্থিত হয়নি। আমরা চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে এই অপপ্রচারের তীব্র প্রতিবাদ জানাচ্ছি ও বিষয়টি তদন্ত করে সুবিচার দাবী করছি। এ ব্যাপারে উক্ত ইউনিয়ন পরিষদের সচিব আব্দুল খালেক জানান, ওই দুই মহিলা সদস্য যে অভিযোগ করেছেন তা সম্পূর্ণ মিথ্যা ও ভিত্তিহীন, কারণ তারা নিজে আমার কাছ থেকে তাদের সম্মানী ভাতা গ্রহণ করেছেন। বাঁকী সদস্যরাও সম্মানী ভাতা নিয়েছেন। শুধু গত তিন মাস ওই দুই মহিলা সদস্য পরিষদে আসেনা, তাই তাদের গত তিন মাস সম্মানী ভাতা আমার কাছে জমা আছে। এ ব্যাপারে চেয়ারম্যান মহিউল ইসলাম (মহি) সাংবাদিকদের জানান, পরিষদের ১২ জন সদস্য নিয়ে এটা আমার একটি পরিবার মনে করি, কিন্তু ওই দুইজন মহিলা মেম্বার যে অভিযোগ করেছে তা সম্পূর্ণ মিথ্যা ও ভিত্তিহীন। চেয়ারম্যান আরো বলেন, পরিকল্পিত ভাবে আমার রাজনৈতিক ভাবমূর্তি ও সুনাম নষ্ট করার জন্য ওই দুইজন মহিলা মেম্বার উঠে পড়ে লেগেছে।

নিউজটি শেয়ার করুন..

এ জাতীয় আরো খবর ....
x