1. raselahamed29@gmail.com : admin :
  2. uddinjalal030@gmail.com : jalaluddin :
  3. dailyazadirkantho24@gmail.com : kantho24 :
  4. puloks25@gmail.com : puloks :
  5. rakibkst1996@gmail.com : rakibkst1996 :
  6. news.thekushtiareport24com@gmail.com : shomoyerbangla24 :
দৌলতপুরে কঠোর লকডাউন তৃতীয় দিনেই মূখ থুবড়ে পড়েছে - Shomoyer Bangla Online TV
শনিবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৬:৫৪ অপরাহ্ন

দৌলতপুরে কঠোর লকডাউন তৃতীয় দিনেই মূখ থুবড়ে পড়েছে

Khandaker Jalal Uddin. Email: uddinjalal030@gmail.com
  • আপডেট টাইম : রবিবার, ২৫ জুলাই, ২০২১
  • ১৬২ বার নিউজটি পড়া হয়েছে

দৌলতপুর প্রতিনিধিঃ সরকার ঘোষিত ঈদ পরবর্তী ২৩ জুলাই থেকে কঠোর লকডাউনের তৃতীয় দিনেই মূখ থুবড়ে পড়েছে, চলছে ঢিলেঢালা ভাবে।
২৫ জুলাই রোববার সকাল থেকে উপজেলা সদর বাদে অধিকাংশ মফস্মল এলাকার বাজারে খোলা ছিল দোকানপাট, ছিল ব্যপক জনসমাগম।
ঐ সব এলাকায় সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত উপজেলা প্রশাসনের কোন অভিযান চলতে দেখেনি সেই এলাকার সচেতন মানুষ। বন্ধ হয়নি সাধারন মানুষের অবাধ চলাচল।

সরকার ঘোষিত লকডাউন বাস্তবায়নে পুলিশ প্রশাসনের লুকোচুরি খেলা নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন উপজেলার একাধিক সচেতন মানুষ, তাদের দাবি দৌলতপুর থানা পুলিশের কয়েকজন সদস্য ও কর্তা ব্যাক্তিরা মাঠে থাকলেও ঠিকমত কাজ করছেননা ইউনিয়ন ভিত্তিক পুলিশ ফাড়ির সদস্যরা।

নামপ্রকাশে অনিচ্ছুক কালিদাশপুর এলাকার এক স্কুল শিক্ষক সাংবাদিকদের জানান, শহর এলাকায় পুলিশ প্রশাসনের লোক লকডাউন মানাতে কঠোর থাকলেও ফাঁড়ি এলাকার পুলিশ সদস্যরা শুধু বাজার ঘাটে গিয়ে মোবাইলে ছবি তুলে কর্তব্য ব্যাক্তিদের নিকট পাঠিয়ে দেখাচ্ছে যে তারা সার্বক্ষনিক মাঠে কাজ করছে।
দৌলতপুর থানার অফিসার ইনচার্জ নাসির উদ্দিন, পুলিশ পরিদর্শক তদন্ত সফিকুল ইসলাম পুলিশ সদস্যদের নিয়ে লকডাউন বাস্তবায়নে উপজেলার সকল প্রান্তে কাজ করে যাচ্ছেন সঠিক ভাবে। তবে ফাড়ি এলাকায় পুলিশের কাজে অবহেলার বিষয়ে (ওসি) নাসির উদ্দিন বলেন,ইতি মধ্যে ফাড়ির সকল সদ্যদের সঠিক ভাবে লকডাউন বাস্তবায়নে কাজ করার জন্য কঠোর ভাবে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।।

দোকান খোলা রাখার কারন জানতে চাইলে বাজারের ব্যবসায়ীরা ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন রাস্তাতে হাজার হাজার মানুষের চলাচল, চলছে অটোরিকশা যাতে ১০ জন করে লোক উঠছে তাতে করোনা নেই কিন্তু ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে করোনা আছে। এই লকডাউনের কারনে শুধু ব্যবসায়ীরা ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে কিন্তু করোনার বিস্তার কমছে না। আমরা চাই লকডাউন বাস্তবায়ন হলে সঠিক ভাবে হোক না হলে সব খুলে দেওয়া হোক।

এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার শারমিন আক্তার জানান, আমি একা এক বাজার থেকে আরেক বাজারে বা এলাকায় গেলে তারা আবার দোকানপাট খুলছে সকলের সহযোগীতা না থাকলে লকডাউন বাস্তবায়ন করা কষ্ট সাধ্য ব্যাপার।

নিউজটি শেয়ার করুন..

এ জাতীয় আরো খবর ....

All rights reserved © 2020 shomoyerbangla.com
Design & Developed BY shomoyerbangla
x